দিনাজপুরে উৎপাদিত হচ্ছে আপেল, নাশপাতি, ড্রাগন, চেরিসহ ২২৫ প্রজাতির ফল

প্রকাশিত: ০১:৪৮ পি এম , ২৪ অক্টোবর ২০২০

দিনাজপুর হর্টিকালচার সেন্টারে উৎপাদিত হচ্ছে আপেল, নাশপাতি, ড্রাগন, চেরিসহ দেশি-বিদেশি ৬৫ প্রকার ও ২২৫ প্রজাতির ফলের চারা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এসব চারা সম্প্রসারিত হলে আগামী ৫ বছরের মধ্যে দিনাজপুরে ফলের উৎপাদন দ্বিগুণ হবে। সেই সাথে মানুষ পাবে ফলের স্বাদ ও পুষ্টি।

২০১৫ সালে দিনাজপুরে ১২ দশমিক তিন পাঁচ একর জমিতে স্থাপন করা হয় হর্টিকালচার সেন্টার। বর্তমানে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে চারা এনে কলম তৈরি করা হচ্ছে এখানে।

দেশীয় ফলের পাশাপাশি রয়েছে কমলা, আপেল ও অ্যাভোগ্যাডোসহ বিদেশি প্রায় ৬৫ প্রকারের চারা। এসব চারা সুলভ মূল্যে পেয়ে বাগান করতে উৎসাহী হচ্ছেন কৃষকরা।

এই সেন্টারে দেশি-বিদেশি ফলের চারার পাশাপাশি রয়েছে বিভিন্ন প্রকার ওষুধি ও মশলা জাতীয় গাছের চারাও। কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ ইমরুল আহসান বলছেন, আগামী ৫ বছরের মধ্যে এই জেলায় ফলের উৎপাদন দ্বিগুণ হবে।

বর্তমানে এ জেলায় ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে ফল উৎপাদন হচ্ছে ১ লাখ ৮৪ হাজার মেট্রিক টন। যার বাজারমূল্য প্রায় ১ হাজার ৯৬ কোটি টাকা।


সর্বশেষ

জনপ্রিয় খবর