বিরামপুরে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনীতে বন্যপাখি প্রদর্শন; প্রশাসনের উদাসীনতায় হতবাক পাখি প্রেমিরা

প্রকাশিত: ১১:১৫ এ এম , ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২২

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের আওতাধীন প্রাণিসম্পদ ও ডেইরী উন্নয়ন প্রকল্প (এলডিডিপি) এর সহযোগীতায় বুধবার (১৬ ফেব্রুয়ারী) বিরামপুর শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম প্রাঙ্গনে উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর কর্তৃক প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী-২০২২ এর আয়োজন করা হয়।

সকালে উপজেলা চেয়ারম্যান খায়রুল আলম রাজু, পৌর মেয়র আক্কাস আলী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেসবাউল ইসলাম প্রমূখ উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।


পরে প্রানিসম্পদ প্রদর্শনী বাস্তবায়ন কমিটি’র সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার পরিমল কুমার সরকার, উপজেলা প্রানিসম্পদ অফিসার ডাঃ এ.আর.এম আল মামুন এর উপস্থিতিতে বদ্ধ খাঁচায় দেশীয় প্রজাতির বন্যপাখি প্রদর্শন করা হয়।

 

সেখানে বদ্ধ খাঁচায় পাখিগুলোকে দেখে উপস্থিত পাখি প্রেমিরা পাখিগুলো অবমুক্ত করণের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট অনুরোধ জানালে তিনি বলেন, পাখিগুলো এখন তারা নিয়ে যাক, বিষয়টি পরে দেখা যাবে। 

উল্লেখ্য যে, তিনি নির্বাহী অফিসার হিসেবে বিরামপুরে যোগদানের পরে ফেসবুকে টিয়া পাখি বিক্রির একটি পোষ্ট দেখে নতুন বাজারের নূর ইসলাম নামের এক ব্যক্তিকে দু’হাজার টাকা জরিমানা করেন এবং পাখিটি হেফাজতে নেন।

অথচ প্রকাশ্যে খাঁচায় বন্যপাখি প্রদর্শন করা হলে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করাই হতবাক এলাকার পাখি প্রেমিরা।

বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইন-২০১২ অনুযায়ী বন্যপাখি শিকার, হত্যা, আটক ও ক্রয়-বিক্রয় দন্ডনীয় অপরাধ যার সর্বোচ্চ শাস্তি ২ বছর কারাদন্ড এবং ২ লক্ষ টাকা জরিমানা।


এদিকে পাখি সংরক্ষণ ও পাখির অভয়াশ্রম নিয়ে কাজ করা সামাজিক ও পরিবেশ বান্ধব স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন স্বপ্ন ছোঁয়া সমাজ উন্নয়ন সংস্থা’র সদস্যরা এ ঘটনায় প্রশাসনের এমন উদাসীনতা ও নির্বিকার ভূমিকা পালনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

 

সেই সাথে বন্যপাখির সংরক্ষণ ও নিরাপত্তার বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে জোড়ালো ভূমিকা পালনের দাবি জানান।
 


সর্বশেষ

জনপ্রিয় খবর